দাবি আদায়ে কাফনের কাপড় পড়ে অনশনে শিক্ষকরা

মোট দেখেছে : 27
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

কাফনের কাপড় পরে আমরণ অনশনে অংশ নিচ্ছেন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকরা।মাদরাসা বোর্ড থেকে রেজিস্ট্রেশন দেয়া সব স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণের দাবিতে জাতীয় প্রেস কাবের সামনে গতকাল দ্বিতীয় দিনের মতো আমরণ অনশন করছেন শিক্ষকেরা। গত ১ জানুয়ারি থেকে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি থেকে গত ৯ জানুয়ারি থেকে আমরণ অনশন শুরু করেন তারা। অনশনে প্রতিদিন বাড়ছে শিক্ষকদের সংখ্যা। গতকাল চার হাজারের মতো শিক্ষক অনশনে যোগ দেন বলে হিসাব করেছেন শিক্ষকেরা। দাবি আদায়ের ব্যাপারে অনড় অবস্থান ব্যক্ত করে অনেক শিক্ষক বলেছেন, মরে যাবো কিন্তু এবার আর দাবি আদায় না করে বাড়ি ফিরব না। জাতীয়করণ ছাড়া রাজপথ ছাড়ব না।

আমরণ অনশনের দ্বিতীয় দিন গতকালও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন অনেক শিক্ষক-শিক্ষিকা। স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে দায়িত্ব পালনরত গোবিন্দগঞ্জ সাখৈল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার তরুণ শিক্ষক আবু সাঈদ জানান, এ দিন বিকেল পর্যন্ত নতুন করে ১৪ জন শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার আগের দিন ২৩ জন অসুস্থ হন। অসুস্থদের মধ্যে দুইজনের অবস্থা গুরুতর। তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 
শিক্ষকেরা জানান, এক দিকে তীব্র শীত তার ওপর বাথরুমের সমস্যা মোকাবেলা করছেন তারা। বিশেষ করে শিক্ষিকারা। পুরুষ শিক্ষকরা আশপাশের বিভিন্ন মসজিদ বা পাবলিক টয়লেটে যেতে পারলেও অনশনে অংশ নেয়া মহিলাদের তীব্র সমস্যা মোকাবেলা করতে হচ্ছে।

শিক্ষকেরা জানান, ১৯৯৪ সালে একই পরিপত্রে রেজিস্টার্ড প্রাইমারি স্কুল ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা ভাতার আওতায় আনার ঘোষণা দেয়ার পর সব রেজিস্টার্ড প্রাইমারি স্কুল জাতীয়করণ করা হয়। অথচ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণ তো দূরের কথা ভাতার ব্যবস্থাও করল না। ১৯৯৪ সালে দেড় হাজারের কিছু বেশি মাদরসায় ভাতা দেয়ার পর বন্ধ হয়ে গেল। এটা আমাদের প্রতি বৈষম্য। প্রাইমারি স্কুলের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসাও জাতীয়করণের ঘোষণা চাই প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে।

১৯৮৪ সালে মাদরাসা বোর্ড ১৮ হাজার ১৯৪টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা রেজিস্ট্রেশন দেয়। তবে বেতন ভাতার অভাবে বন্ধ হয়ে গেছে অনেক মাদরাসা। 

আরো দেখুন

সর্বশেষ ফটো